সোনারগাঁও জি.আর ইনস্টিটিউশন স্কুলের নির্বাচনে সংঘর্ষ, আহত ২

66

সোনারগাঁও প্রতিনিধি: সোনারগাঁ উপজেলা ঐতিহ্যবাহী সোনারগাঁও জি.আর ইনস্টিটিউশন স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা পর্ষদ কমিটির নির্বাচন নিয়ে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া নির্বাচন চলাকালীন সময়ে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে একজন প্রার্থীর ভাই সহ দুইজন আহত হয়েছেন।
জানাগেছে, দীর্ঘ ২০ বছর পর সোনারগাঁয়ের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপিঠ সোনারগাঁও জি.আর ইনষ্টিটিউশন স্কুল এন্ড কলেজের গভনিং বর্ডির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় মঙ্গলবার। ভোট চলাকালীন সময়ে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে দাড়ানো নিয়ে তর্কবির্তকের এক পর্যায়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে গভনিং বর্ডির সদস্য প্রার্থী বর্তমান পৌর কাউন্সিলর দুলাল মিয়া ও আরেক প্রার্থী সাবেক কাউন্সিলর মোশারফ হোসেনের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে দুলাল কমিশনারের ভাই শাহাজালাল মারাত্মক আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
জানাগেছে, অভিভাবকদের দাবির মুখে ২২ আগস্ট মঙ্গলবার বিদ্যালয়টিতে গভনিং বর্ডির নির্বাচন অনুষ্টিত হয়। নির্বাচনে সকাল আট থেকে চলে বিকাল ৪টা পর্যন্ত চলে ভোট গ্রহন। এ নির্বাচনটি ঘিরে নানা অভিযোগ উঠেছে নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে। পর্যাপ্ত নিরাপত্তা না থাকায় নির্বাচন শুরু থেকে ক্ষমতাসীন দলের নেতারা যে যার যার মতো ভোট কেন্দ্রে প্রভাব বিস্তার করে। এসময় তারা অনেক ভোটারকে প্রভাবিত করে ভোট আদায়ের অভিযোগ ওঠেছে।
অভিযোগ, প্রত্যেক বুথে একজন করে এজেন্ট দেওয়ার কথা থাকলেও নির্বাচন পরিচালনা কমিটি চারটি বুথের জন্য একজন এজেন্ট দেওয়া হয়। ফলে ভোটারদের ভোট নাম্বার পেতে ও সিলিপ নিতে সমস্যা পড়তে হয়। এছাড়া চারটি বুথে শ্রেনী ভিত্তিক আলাদাভাবে অভিভাবকরা ভোট দেওয়ার কথা থাকলেও শ্রেনী ভিত্তিক অনুযায়ী বুথ না থাকায় ভোট দেওয়ায় বিড়ম্ভনায় পড়তে হয়েছে অভিভাবকদের।
অভিভাবকরা জানান, সর্বশেষ এ বিদ্যালয়টিতে ১৯৯৭ সালে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ নির্বাচন অনুষ্টিত হয়। এরপর থেকে যখন যে সরকার ক্ষমতায় এসেছে তখন সে সরকারের পছন্দের লোকজন দিয়ে পরিচালনা পর্ষদ গঠন করা হয়েছে। কিন্তু দীর্ঘদিন পরে নির্বাচন হলেও ক্ষমতার প্রভাব খাটানো হয়েছে এ নির্বাচনেও। এ রির্পোট লেখার সময় ভোট গণনা চলছে। ###