ডিএনডি’র জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবিতে কঠোর কর্মসূচী ঘোষনা দিয়ে ৭ দিনের আল্টিমেটাম

2894

নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম : ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-ডেমরা (ডিএনডি) বাঁধের অভ্যন্তরের ভয়াবহ জলাবদ্ধতার পানি দ্রুত নিস্কাশনের জন্য সাত দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।
শনিবার সকালে সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল পাম্প হাউজের সামনে মানববন্ধন কর্মসুচী থেকে এ আল্টিমেটাম দেয়া হয়। অন্যদিকে একই দাবিতে সচেতন নাগরিক সমাজের ব্যানারে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। শনিবার সকাল ১০ টায় সচেতন নাগরিক সমাজের সাংবাদিক সম্মেলন ও বেলা ১১ টায় (ডিএনডির অভ্যন্তরে বসবাসকারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সংগঠন) ঢাকা ইউনিভাসিটি স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন (ডুসাস) মানববন্ধন কর্মসুচী পালন করে।

ডিএনডি ভয়াবহ জলাবদ্ধতার পানি দ্রুত নিষ্কাশনের দাবিতে মানবববন্ধন করেছে (ডিএনডি এলাকায় বসবাসরত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সংগঠন) ঢাকা ইউনিভাসিটি স্টুডেন্টস এসোসিয়েশ( ডুসাস) শিক্ষার্থীরা। সকাল ১১ টায় শিমরাইল ডিএনডি সেচ পাম্প হাউজের সামনের অর্ধশতাধিক ছাত্র এ মানববন্ধন কর্মসুচী পালন করে। এ সময় শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে পড়েন সিদ্ধিরগঞ্জ পাম্প হাউজের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আব্দুল জব্বার। শিক্ষার্থীরা তার কাছে জানতে চান পারি নিষ্কাশনের ছোট ২২টি পাম্পের মধ্যে ৪-৫ টি ছাড়া বাকিগুলো বন্ধ কেন? কেন চালানো হচ্ছে না? বড় ৪টি পাম্প কেন সব সময় চালু রাখা হচ্ছে না ? জবাবে প্রকৌশলী তাদেরকে পাম্প বিকলসহ নিষ্কাশনের নানা সীমাবদ্ধতার কথা জানান।
ছাত্ররা এ সময় বলেন, আমরা সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি পানি নিষ্কাশনের জন্য নতুন মেশিন বসিয়ে দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। আগামী সাত দিনের মধ্যে যদি পানি নিস্কাশন সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসা না হয় তবে ডিএনডিতে বসবাসবারি মানুষজনকে সাথে নিয়ে বৃহত্তর আন্দোনৈ গড়ে তোলা হবে। এ সময় শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আব্দুল জব্বার শিক্ষার্থীদের আশ্বস্ত করেন আগামী সাত দিনের মধ্যে যদি নতুন করে ভারী বৃষ্টিপাত না হয় এবং আবহওয়া ভাল থাকে তবে পানি নিস্কাশন স্বাভিবক গতিতে চালানো যায়। তবে জলাবদ্ধতা অনেকটা কমে আসবে।

মানববন্ধন কর্মসুচীতে বক্তব্য রাখেন- সংগঠনটির আহ্বায়ক বেলাল হোসেন, যুগ্ম আহ্বায়ক হাসিবুল আনোয়ার ও সদস্য সচিব ইকবাল হোসেন প্রমুখ।
এ ব্যাপারে সিদ্ধিরগঞ্জ পাম্প হাউজের উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী আব্দুল জব্বার টেলিফোনে জানান, সকালে শিক্ষার্থীরা পানি নিস্কাশন পাম্প হাউজের সামনে মানববন্ধন করেছেন। এসময় শিক্ষাথীরা তার কাছে পাস্পের বিষয়ে বিভিন্ন খোজ খবর নেন। পাম্প বন্ধ কেন তার কারনও জানতে চান। আমি তাদের বলেছি,১২৮ কিউসেক পানি নিস্কাশন ক্ষমতা সম্পন্ন চারটি বড় পাম্পের মধ্যে একটি পাম্প প্রায় দেড় মাস ধরে নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। নষ্ট পাম্পটি মেরামতের চেষ্টা চলছে। পাম্প হাজের পানির স্তর থেকে বাইরের লেকে বেশী পানি থাকায় পাম্পটি মেরামত করা যাচ্ছেনা। বাকি তিনটি পাম্প দিন রাত ২৪ ঘন্টা পানি নিস্কাশন চলছে। এছাড়া ছোট ২২ টি পাম্পের মধ্যে ১২ টি পাম্প অকেক আগেই নষ্ট হয়ে গেছে। বাকি পাম্পগুলো সকাল বিকেল পালা করে চালানো হচ্ছে। কারন এক সাথে চালালে পুরনো এই ছোট পাম্পমের মেশিন জ্বলে যেতে পারে।

অন্যদিকে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ৭নং ওয়ার্ডসহ ডিএনডি’র অভ্যন্তরে জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবিতে শনিবার সকাল ১০টায় আদমজীতে অবস্থিত সিদ্ধিরগঞ্জ থানা কার্যালয় সংলগ্ন এলাকায় ‘সচেতন নাগরিক সমাজ’ এর ব্যানারে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে নেতৃবৃন্দরা। সাংবাদিক সম্মেলনে ডিএনডি’র জলাবদ্ধতা নিরসনে কার্যকরী প্রদক্ষেপ গ্রহণ করতে জেলা প্রশাসনকে ৭ দিনের আলটিমেটাম দিয়েছে সিদ্ধিরগঞ্জের সচেতন নাগরিক সমাজের নেতৃবৃন্দরা। নতুবা পানিবন্দী মানুষকে সাথে নিয়ে ডিএনডি পাম্প হাউজ ঘেরাও, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মুক্তিস্মরণী এলাকা অবরোধসহ বৃহৎ কর্মসূচি গ্রহণেরও হুমকি দেয় তারা। সচেতন নাগরিক সমাজের আহ্বায়ক এমএ মাসুদ বাদলের সভাপতিত্বে মোসলেম উদ্দিনের সঞ্চালনায় সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন, শহিদুল ইসলাম, জয়দুল হোসেন গাজী, শরিফ হক মিতালী, মাহিল উদ্দিন মাষ্টার, মোক্তার হোসেন, আলীম উদ্দিন খান, দেলোয়ার হোসেন, আ: খালেক ও ইউসূফ আলী প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, গত দুই মাস ধরে ডিএনডিবাসী পানিবন্দী হয়ে অবর্নণীয় দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। কারো বাসায় হাটু সমান পানি, কারো বাসায় কোমড় সমান পানি এবং রাস্তা-ঘাটের অবস্থা অত্যন্ত নাজুক। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তলিয়ে যাওয়ায় পাঠদান বন্ধ রয়েছে। বাড়ি-ঘরে পানিতে তলিয়ে যাওয়ার কারণে ছোট ছোট ছেলে মেয়ে নিয়ে চরম কষ্টে দিন যাপন করছে ডিএনডি’র বাসিন্দারা। পানি বাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন তারা। কিন্তু আমাদের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা আজ পর্যন্ত কেউ এসে খোঁজ খবর তো দুরের কথা কেউ শান্তনাও দেয়নি।
তারা জানায়, আর মাত্র ১২ দিন পর পত্রি ঈদুল আয্হা। পানিবন্দী অবস্থায় কোনভাবে পশু কোরবানী দেয়া সম্ভব নয়। আবহাওয়া বার্তা আনুসারে আগামী কয়েক দিনের মধ্যে অবিরাম বৃষ্টি শুরু হবে। আর এর ফলে আমাদের জনজীবন আরো বিপর্যস্ত হবে। একদিকে বৃষ্টি আর অন্যদিকে বন্যার পানি আসছে। তাই পালাক্রমে ২০ লাখ ডিএনডিবাসী মহাবিপর্যয়ের দিকে দাবিত হচ্ছে।
তাদের দাবি দ্রুত সরকার সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল, আদমজী , ডেমরা সহ বেশ কয়েকটি এলাকায় নতুন পাম্প মেশিন বসিয়ে দ্রুত পানি নিস্কাশন করার । এছাড়াও তারা বলেন, জেলা প্রশাসনের দুর্যোগ ফান্ড থাকলেও তাদের আন্তরিকতার অভাবে কার্যকরী কোন ব্যবস্থা না নিয়ে নীরব রয়েছে। তাঁরা কি পারেননা কয়েকটি পাম্প বসিয়ে ডিএনডির পানি নিস্কাশন করতে? ###