জঙ্গীবাদ বিরোধী কবিতা লেখায় অস্ত্রের কোপ: গুরুত্ব দিচ্ছেনা পুলিশ

262

নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম: নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের বাসিন্দা কবি ইয়াকুব কামালের বাড়ির গেটে কে বা কারা কুপিয়ে গেছে। ইয়াকুব কামালের অভিযোগ জঙ্গীবাদ বিরোধী কবিতা লেখায় ও লিফলেট বিতরন করায় জঙ্গীরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেছেন। কিন্তু এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ করেও তিনি পুলিশের যথাযথ সহযোগিতা পাচ্ছেন না বলে তিনি জানান।
সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি পাইনাদি এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা ইয়াকুব কামাল জানান, গত ৪ নভেম্বর রাতে কয়েকজন যুবক ধারালো অস্ত্র নিয়ে এসে তার বাসার লোহার প্লেটের দরজায় কোপায়। এসময় এলাকাবাসি তাদের ধাওয়া করে তাদের সাথে থাকা এক শিশুকে ধরে ফেলে। এসময় তারা তিন যুবককে ধারালো অস্ত্র নিয়ে পালিয়ে যেতে দেখে। সাথের শিশুটিকে পরে কবির অনুরোধে এলাকাবাসি মারধর না করে ছেড়ে দেয়। শিশুটি ঐ এলাকারই বাসিন্দা।
এ ব্যাপারে অভিযোগ করতে ইয়াকুব কামাল সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় গেলে ডিউটি অফিসার তাকে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সাথে দেখা করতে দেয়নি। ইয়াকুব কামাল এ ব্যাপারে থানায় জিডি করতে চাইলে তারা একটি অভিযোগ লিখিয়ে জিডি এন্ট্রি না করেই রেখে দেয়। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করতে ইয়াকুব কামালের বাসায় পর্যন্ত আসেনি। গত শনিবার এ ব্যাপারে স্থানীয় সাংবাদিকরা খোজ খবর করলে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এসআই জসিম ইয়াকুব কামালের বাসায় যান। কিন্তু এরপরেও বিষয়টি থানায় জিডি হিসেবে এন্ট্রি হয়নি। ইয়াকুব কামাল অভিযোগ করেন, ঘটনার কারনে আমি পরিবার পরিজন নিয়ে নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে রয়েছি। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আমাকে বলেছে এটি কোনো জঙ্গীর কাজ না , কোনো হিরিঞ্চির কাজ হবে। মনে হচ্ছে এখন কোপ খেয়ে পুলিশের কাছে প্রমান করতে হবে যে আমি জঙ্গী হামলার হুমকির মধ্যে রয়েছি।
এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করা হলে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এস আই জসিম বলেন, ঘটনাটি কোনো হিরিঞ্চির কাজ হবে। অথবা কেউ দুষ্টুমি করে করেছে। জঙ্গীরা ঘটনা ঘটিয়েছে বলে মনে হচ্ছে না। বিষয়টি দেখছি।
এ ব্যাপারে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি শরাফত উল্লাহর মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।#