সাত খুনের মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী পিপি ওয়াজেদ আলী খোকনের মেয়েকে বিষ প্রয়োগ

69

নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম: নারায়ণগঞ্জের পিপি এডভোকেট ওয়াজেদ আলী খোকনের মেয়ে মাইশা ওয়াজেদ প্রাপ্তিকে জোর করে বিষ খাইয়ে দিয়েছে এক দুবৃত্ত। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। সন্ধা সাড়ে hhhhhStill0823_00001সাতটায় নগরীর বঙ্গবন্ধু সড়কের উকিলপাড়ায় জন ব্যাস্ততার মধ্যেই এ ঘটনা ঘটে। বিষ খাওয়ানোর সময় দুবৃত্ত তাকে বলে, ‘তোমার বাবা ভালো কাজ করেছে, সাত খুনের মামলায় সবাইকে ফাঁসি দিয়ে দিয়েছে।’
এম্বুলেন্সে থাকা পিপি ওয়াজেদ আলী খোকন ও তার ছোট ভাই বাবু টেলিফোনে জানান, তার মেয়ে প্রাপ্তি ও লেভেলে পড়ে। তার বয়স সতের। সে নগরীর বঙ্গবন্ধু সড়কের নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের উল্টোদিকে হাজী মঞ্জিলে তার নানা বাড়িতে ব্যাচ পড়তে যায়। এখানে প্রাপ্তির মামা ব্যাচ পড়ায়। ব্যাচ পড়ে সে ঐ ভবন থেকে নামার পরে ফুটপাথে শ্যামলা বর্নের মধ্য বয়স্ক এক ব্যাক্তি তাকে বলে, ‘তুমি ওয়াজেদ আলি খোকনের মেয়ে না। আমি তোমাদের বাসায় গিয়েছি। তোমার বাবা আমার বন্ধু। তোমার বাবা ভালো কাজ করেছে। সাত খুনের মামলায় সবাইকে ফাসি দিয়ে দিয়েছে। নাও তুমি কিছু খাও।’ এ কথা বলে ঐ ব্যাক্তি মেয়েটির মুখে কিছু একটা জোর করে ঢুকিয়ে দেয়। মুখে ঐ খাবার ঢোকানোর পরেই তার মুখে গলায় প্রচন্ড জ্বালা করতে থাকে। বিষয়টি সে বুঝতে পেরে দ্রুত একটি রিকশায় উঠে পড়ে। এসময় লোকটি তাকে আটকে রাখারও চেষ্টা করে। সে লোকটির হাত ছাড়িয়ে রিকশায় উঠে তার বাবাকে ফোন দেয়। নগরীর বালুরমাঠে তাদের বাড়ির সামনে চলে আসে। তার বাবাকে জানায়, ‘বাবা আমাকে মেরে ফেলেছে। আমাকে বিষ খাইয়ে দিয়েছে।’ এরপর পরিবারের লোকজন তাকে নগরীর খানপুরে অবস্থিত নারায়ণগঞ্জ তিনশ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। পরে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এ রিপোর্ট লেখার সময় তার পাকস্থলী ওয়াশ করা হচ্ছিলো। ওয়াজেদ আলী খোকন আরো জানান, আমাকে রায়ের পর অনেকেই সতর্ক করে দিয়েছিলো। সাবধানে চলাফেরা করতে বলেছিলো। আমি বাসার কাউকে জানাইনি।
ওয়াজেদ আলী খোকনের ভাই ওয়াহিদ সাদাত বাবু আরো জানান, ঐ লোকটির শার্ট ইন করা ছিলো। সামনে একটি সাদা কারিনা গাড়ি দাড় করানো ছিলো। তিনি বলেন, এ ঘটনার সাথে সাত খুনের মামলার রায়ের কোনো যোগসাজশ থাকতে পারে। যদিও প্রাপ্তি একজনের কথা বলছে আমাদের ধারনা আশেপাশে আরো কেউ থাকতে পারে।
পিপি ওয়াজেদ আলী খোকন নারায়ণগঞ্জের সাত খুন মামলা চলাকালীন সময়ে রাষ্ট্র পক্ষের আইনজীবি (পাবলিক প্রসিকিউটর) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। রাত সোয়া নয়টায় তিনি জানান, প্রাপ্তি অপেক্ষাকৃত সুস্থ আছে।
ঘটনা সম্পর্কে নারায়ণগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর শাহীন শাহ্ পারভেজ জানান, ঘটনাটি আমরা শুনেছি। আমরা খোজ খবর নিচ্ছি। #