শামীম ওসমানের মন্ত্রী হওয়ার আশ্বাসের চেয়েও গুরুত্বপূর্ন ছিল কেন্দ্রীয় কমিটির পদ

2671

নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম: আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে শামীম ওসমানকে মূল্যায়ন না করায় কোন পদে রাখা হয়নি, এখন মন্ত্রী হওয়ার আশ্বাসের দিকে তাকিয়ে থাকা ছাড়া আর কোন উপায় নেই তার। আওয়ামীলীগের কেন্ত্রীয় কাউন্সিলের আগে শামীম ওসমান দলের একটি গুরুত্বপূর্ন পদ পেতে পারে এমন গুঞ্জন চলছিল নেতাকর্মীদের মাঝে। তিন্তু নানা ঘটনা বিচার বিশ্লেষন করে কেন্দ্রীয় কমিটিতে শামীম ওসমানকে রাখা হয়নি। এ বিষয়ে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, মূল দলের কেন্দ্রীয় পদই গুরুত্ব পূর্ন বেশী,এখানে মন্ত্রী’র পদ ততটা গুরুত্বপূর্ন না। কারন একজন রাজনৈতিক নেতার মূল্যায়নই হয় তার দলের কেন্দ্রীয় কমিটিতে। কারন আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে দলের ত্যাগী নেতৃবৃন্দের মূল্যায়ন করা এটা দলের প্রচলিত রীতি । এ ক্ষেত্রে শামীম ওসমান দলের জন্য অনেক কিছু করলেও শেষ পর্যন্ত তার পরিবার ও নিজের বিতর্কিত কর্মকান্ডের জন্যই কেন্দীয় কমিটিতে ঠাই পায়নি বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতামত, আর এখন শামীম ওসমান তার সমর্থক নেতাকর্মীদের শান্তনা দিতেই পরবর্তিতে মন্ত্রী হওয়ার আশ্বাষের কথা শোনাচ্ছেন। দলের সাধারন সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সম্প্রতি ফতুল্লা স্টেডিয়ামে অলিম্পিক ক্রিকেট টুর্নামেন্ট উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পরিস্কার ভাবে বলেছেন, নারায়ণগঞ্জের কোন নেতা কেন্দ্রীয় কমিটিতে ঠাই না পাওয়া এটা প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছায়ই হয়েছে। এখন পরবর্তিতে মন্ত্রী পরিষদ রদবদল করলে প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতা ও তার ইচ্ছায়ই কেউ মন্ত্রীর পদ পেতে পরে। তবে তিনি (মন্ত্রী) স্পস্ট করে বলেছেন, আমি নারায়ণগঞ্জের কথা বলছি না। এটা যে কোন অঞ্চলের নেতা মন্ত্রী হতে পারে। তাহলে মন্ত্রীর কথার ইঙ্গিতে শামীম ওসমান মন্ত্রী পাবে এ কথাও স্পষ্ট নয়। আওয়ামীলীগের রাজনীতিকে এ কে এম শামীম ওসমান আরো অনেক আগেই মন্ত্রী হওয়ার সম্ভাভনা ছিল এবং নারায়ণগঞ্জের নেতাকর্মীরা বরাবরই আশা করতো শামীম ওসমানকে আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে গুরুত্বপূর্ন পদে নেয়া হবে। অথচ এবারের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলে শামীম ওসমানকে কোন পদ দেওয়া হয়নি। এ কারনে রাজনৈতিক অঙ্গনে শামীম ওসমান সমর্থকদের মধ্যে এ নিয়ে নানা গুঞ্জন চলছে। তকে কেন্ত্রীয় নেতারা কাউন্সিলের পরপরই বিভিন্ন মিডিয়ার সাংক্ষৎকারে বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী এবারের কাউন্সিলে সৎ নির্ভীক ও স্বচ্ছ ইমেজের নেতৃত্ব দিয়ে কেন্দ্রীয় কমিটি সাজানো হয়েছে। তাহলে কি শামীম ওসমান সৎ নির্ভীক ও স্বচ্ছ ইমেজের নয় এমন প্রশ্নই আলোচনা হচ্ছে নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের মাঝে।
এ ব্যাপারে আওয়ামীলীগের কয়েকজন প্রবীন নেতার সাথে কথা হলে, তারা জানিয়েছেন, আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে প্রতিটি নেতার কর্মকান্ড কেন্দ্র পর্যবেক্ষন করেন। এবং ঠিক সময় হলেই কেন্ত্রীয় নেতৃবৃন্দ তার মূল্যায়ন করেন। উদাহরন দিয়ে বলেন, বর্তমানে আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই একজন প্রবীন রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব। বিগত সময় আব্দুল হাই ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে গুরুত্বপূর্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। এ কারনে একটু দেরী হলেও আওয়ামীলীগ ঠিকই আব্দুল হাইকে মূল্যায়ন করেছেন। আর এবারের কাউন্সিলে শামীম ওসমানের মূল্যায়ন না করা হলেও পরবর্তিতে শামীম ওসমানকে যেন মূল্যায়ন করেন সে দিকে খেয়াল রেখেই তার রাজনৈতিক কর্মকান্ড করা প্রয়োজন। ###