রূপগঞ্জে জমি দখল নিতে ইউপি চেয়ারম্যানের বালু ভরাট

295

রূপগঞ্জ প্রতিনিধি: হাইর্কোটের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে জমি দখল নিতে জোরপূর্বক বালু ভরাট করছে উপজেলার মুড়াপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ আলমাছ ও সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার রেহানা আক্তার। এ ঘটনায় জমির মালিক দড়িকান্দি এলাকার মৃত আশরাফ উল্লাহর ছেলে মোশারফ হোসেন বাদি হয়ে ঢাকা পুলিশ হেডকোয়ার্টাসের ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক, জেলা পুলিশ পুলিশ সুপার, রূপগঞ্জ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।
এদিকে ব্রাহ্মণগাঁও মৌজার ৩টি খতিয়ানে ২ দশমিক ৩৪ একর জমি বেচা-বিক্রি ও আকার-আকৃতি পরিবর্তন না করার জন্য বিবাদিদের বিরুদ্ধে হাইর্কোটের আদেশ রয়েছে। এ ব্যাপারে সম্পত্তিতে একাধিক গণবিজ্ঞপ্তির সাইনবোর্ড রয়েছে। জমির মালিক মোশারফ হোসেন বাদি হয়ে রূপগঞ্জ থানায় একাধিক জিডিও করেছেন।
নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কাছে দেয়া অভিযোগ থেকে জানা যায়, মেসার্স আশমিনা ফেব্রিক্স প্রাঃ লিমিটেড নামে একটি আধুনিক টেক্সটাইল মিল স্থাপনের জন্য মোশারফ হোসেন পাকা বিল্ডিং স্থাপন করেন। বিল্ডিংয়ের পাশে পানি উন্নয়ন বোর্ডের জমিতে ড্রেজার বসিয়ে মুড়াপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ আলমাছ ও ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার রেহেনা আক্তারের নির্দেশে বালু ভরাট করছে। ফলে আশমিনা ফেব্রিক্সের সম্পত্তিও বালু দিয়ে ভরাট করে দখলে নেয়ার পায়তারা করছেন। আলমাছ বাহিনীর লোকজন এলাকায় প্রকাশ্যে সর্টগান নিয়ে ঘুরাফেরা করছে। এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করে তোফায়েল আহমেদ আলমাছ অপরাধ কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে।
অভিযোগ থেকে আরো জানা যায়, নারায়ণগঞ্জের মাসদাইর এলাকার মৃত আব্দুস সালামের ছেলে মো. সোহাগ হাইর্কোটের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে পানি উন্নয়ন বোর্ডের জমিসহ গত ২৪ আগষ্ট স্যামরন পেপার মিলের মালিক মোহাম্মদ হোসেনের কাছ থেকে ৮৭ শতাংশ জমি ক্রয় করেন। পরে মো. সোহাগ ওই জমিতে বালু ভরাট কাজের দায়িত্ব দেন মুড়াপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ আলমাছ ও ইউপি সদস্য রেহেনা আক্তারকে।
জমির মালিক মোশারফ হোসেন জানান, পৈত্রিক সম্পত্তি প্রায় ৭৫ বছর ধরে ভোগ দখল করে আসছি। ওই সম্পত্তি দখলে নিতে জোরপূর্বক বালু ভরাট করে আসছে তোফায়েল আহমেদ আলমাছ। বাধা দিলে প্রাণনাশসহ হত্যা, ডাকাতি, চাঁদাবাজি মামলায় জড়ানোর হুমকি দেয়। সম্পত্তির আশপাশে আলমাছের সন্ত্রাসী বাহিনী প্রকাশ্যে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে ঘুরাফেরা করে। সন্ধ্যা নেমে আসলেই ড্রেজারের মাধ্যমে বালু ভরাট শুরু করে। ভোর রাতে ড্রেজার বন্ধ করে রাখে। আমরা এখন স্বপরিবারে চরম নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছি।
বিষয়টি সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী (বীর প্রতিক) কে জানালে হাইর্কোটের মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ইউপি চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ আলমাছকে বালু ভরাটসহ কোন কাজ না করার জন্য নিষেধ করেন। হাইর্কোট ও সংসদ সদস্যকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে বালু ভরাটের কাজ অব্যাহত রেখেছেন আলমাছ।
এ ব্যাপারে তোফায়েল আহমেদ আলমাছ জানান, বালু ভরাট করলে পাশের জমিতে পড়তেই পারে। তবে কারো জমি দখলের জন্য বালু ভরাট করা হচ্ছে না।
রূপগঞ্জ থানার ওসি ইসমাইল হোসেন বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বালু ভরাট কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। পুলিশ চলে আসার পর রাতের বেলা বালু ফেলতে পারে। ##