প্রেসক্লাব নির্বাচন নিয়ে ষড়যন্ত্র: ঘোষিত তারিখে নির্বাচন করতে ১৮সদস্যের আবেদন

281

নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ ভোটে জিততে পারবে না জেনে একটি পক্ষ নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব নিয়ে ষড়যন্ত্রে নেমেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অন্যদিকে প্রেসক্লাবের ১৮ জন স্থায়ী সদস্য নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তারিখে নির্বাচন করতে নির্বাচন কমিশনের কাছে লিখিত আবেদন করেছেন। তবে নির্বাচন কমিশনের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, তারা যতদ্রুত সম্ভব নির্বাচন করতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত চারবার পেছালো। নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচনের ব্যাপারে করা লিভ টু আপিল হাইকোর্ট ডিসমিস করায় প্রেসক্লাবের নির্বাচন করতে কোনো বাধা নেই। এর প্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশন ৫ নভেম্বর নির্বাচনের তারিখ ঘোষনা করেছিলো। কিন্তু নির্বাচনের দুইপ্রার্থীসহ তিনজনের আবেদনের প্রেক্ষিতে নির্বাচনের তারিখ আগামী ১১ নভেম্বর শুক্রবার নির্ধারন করেন নির্বাচন কমিশন।
নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের প্রথম নির্বাচনী তফসিল অনুযায়ী ২৪ জুন শুক্রবার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু আইনী জটিলতার কারনে এটি পিছিয়ে ২৮ অক্টোবর ভোট গ্রহনের তারিখ নির্ধারন করা হয়। এরপর নির্বাচন কমিশন ৫ নভেম্বর নির্বাচনের তারিখ ঘোষনা করেন। পরে আবার নির্বাচনে সভাপতি প্রার্থী মোস্তফা করিম, সাধারন সম্পাদক প্রার্থী বিল্লাল হোসেন রবিনের আবেদনের প্রেক্ষিতে নির্বাচনের তারিখ পিছিয়ে ১১ নভেম্বর করা হয়। কিন্তু তারা এ নির্বাচন এখন তিন মাস পিছিয়ে দিতে আবেদন করেছে।
অভিযোগ রয়েছে ভোটে জিততে পারবে না জেনে একটি পক্ষ নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব নিয়ে ষড়যন্ত্রে নেমেছে। নির্বাচন কমিশনের কোনো সদস্য পদত্যাগ না করলেও তারা প্রচারের চেষ্টা করে যে, কমিশনের অন্যতম সদস্য ডাঃ শাহনেওয়াজ কমিশন থেকে পদত্যাগ করেছেন। এছাড়া তারা কমিশনের আরেক সদস্যের ব্যাপারে মিথ্যা তথ্য দিয়ে তার চরিত্র হননেরও চেষ্টা চালায়। এ পক্ষটি চাচ্ছে নির্বাচন কমিশনারদের পদত্যাগ করিয়ে নির্বাচন নিয়ে জটিলতা করে অবৈধ পন্থায় নির্বাচন বানচাল করে একটি প্রভাবশালী মহলের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে। তারা প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্রের বিধিবিধান বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখাতে চাচ্ছে।
নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব একমাত্র প্রতিষ্ঠান যেটি নারায়ণগঞ্জবাসির পক্ষে অকুন্ঠভাবে কথা বলে যাচ্ছে। এ কারনে মহল বিশেষের রোষানলে পড়েছে বর্তমান নেতৃবৃন্দ।
সূত্র আরো জানায়, নির্বাচন কমিশনের কাছে সভাপতি প্রার্থী মোস্তফা করিম, সাধারন সম্পাদক প্রার্থী বিল্লাল হোসেন রবিন ও স্থায়ী সদস্য আরিফ আলম দীপু নির্বাচনের নতুন সিডিউল করে নির্বাচনের তারিখ পুনঃ নির্ধারনের আবেদন করেন। এ নিয়ে নির্বাচন কমিশনের তিন সদস্য গতকালও সভা করেছেন। এ ব্যাপারে তারা আগামী ৮ নভেম্বর সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানা গেছে। ফলে কোনো কোনো পত্রিকায় নির্বাচন কমিশনের সদস্য ডঃ শাহনেওয়াজ চৌধুরী পদত্যাগ করেছে বলে যে দায়িত্বহীন সংবাদ প্রচার করেছে তা মিথ্যা বলে প্রমাণিত হয়েছে। এসব পত্রিকা-ই ঐ ষড়যন্ত্রের এজেন্ডা বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে।
এদিকে নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তারিখ ১১ নভেম্বর শুক্রবার নির্বাচন অনুষ্ঠিত করনের দাবীতে প্রেসক্লাবের আঠারোজন স্থায়ী সদস্য নির্বাচন কমিশনের কাছে লিখিত আবেদন করেছে। আবেদনে তারা বলেন, আমরা নিন্ম সাক্ষরকারিগন নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের ২০১৬-২০১৮ বর্ষের ঘোষিত নির্বাচনের ভোটার। মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের পূর্নাঙ্গ বেঞ্চ CIVIL PETITON FOR LEAVE TO APPEAL NO, 3420 0F2016 এর পিটিশন শুনানীর পর ডিসমিস করার প্রেক্ষিতে আপনি ৩ নভেম্বর ২০১৬ খ্রীষ্টাব্দ তারিখে ঘোষনা করেন যে ৫ নভেম্বর ২০১৬ খ্রীষ্টাব্দ শনিবার দুপুর দুইটা থেকে বিকেল পাচটা পর্যন্ত নির্বাচনের ভোটগ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। আপনার সাক্ষরে এ সংক্রান্ত নোটিশ প্রকাশ করে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের নোটিশ বোর্ডে টানিয়ে দেয়া হয়। কিন্তু অজ্ঞাত কারনে নির্ধারিত সময়ে অর্থ্যাৎ ৫ নভেম্বর ২০১৬ তারিখে নির্বাচনের ভোট গ্রহন সম্পন্ন না করে পুনরায় ১১ নভেম্বর ২০১৬ খ্রীষ্টাব্দ শুক্রবার দুপুর দুইটা থেকে বিকেল পাচটা পর্যন্ত ভোট গ্রহনের তারিখ ও সময় পুনঃ নির্ধারন করে নোটিশ প্রদান করেছেন।
প্রকাশ থাকে যে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্র এবং নির্বাচনী তফসিল অনুযায়ী ২৪ জুন ২০১৬ খ্রীষ্টাব্দ শুক্রবার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু আইনী জটিলতার কারনে আপনি যথাসময়ে নির্বাচন করতে না পারায় মহামান্য হাইকোর্টের সিভিল রিভিশন নাম্বার ২৯৩৯/১৬ এর নির্দেশনা অনুযায়ী ২৮ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে পুনঃ সংশোধিত তফসিল প্রণয়ন পূর্বক ভোট গ্রহনের তারিখ ও সময় নির্ধারন করেন।
গত ২৬ অক্টোবর ২০১৬ খ্রীষ্টাব্দ তারিখে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আপীল বিভাগের অবকাশকালীন চেম্বার জজ CIVIL MISCELLANEOUS PETITON NO, 1350 0F2016 মুলে মহামান্য হাইকোর্ট এর আদেশটি স্টে করেন।
এদিকে গত ২৮ অক্টোবর ২০১৬ খ্রীষ্টাব্দে ভোট গ্রহনের জন্য যে তফসিল ঘোষনা করা হয়েছিলো সে প্রেক্ষিতে গত ২৫ অক্টোবর ২০১৬ খ্রীষ্টাব্দ তারিখে নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান জনাব আহসানুল করিম চৌধুরী বাবুল সাক্ষরিত নোটিশে প্রকাশ করা হয় প্রতিদ্বন্দ্বী কোনো প্রার্থী না থাকায় ও তফসিল অনুযায়ী জমাকৃত নমিনেশন পেপারের মধ্য থেকে একজন প্রার্থী (বিল্লাল হোসেন রবিন) সদস্য পদ থেকে নিজের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করায় নয়জন প্রার্থীকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষনা করে নোটিশ প্রকাশ করা হয়। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিতরা হচ্ছেন, সহ-সভাপতি জনাব বিমল রায়, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক জনাব মজিবুল হক পলাশ, কোষাধক্ষ জনাব রফিকুল ইসলাম জীবন, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক জনাব রফিকুল ইসলাম রফিক, কার্যকরী সাধারন সদস্য জনাব হালিম আজাদ, জনাব নাফিজ আশরাফ, জনাব আনিসুর রহমান আনিস, জনাব হাসানুজ্জামান শামীম ও জনাব ফয়সল পরাগ।
বর্তমানে নির্বাচন কমিশনের নোটিশ অনুযায়ী নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচনে মাত্র দুইটি পদ যথাক্রমে সভাপতি পদে জনাব মাহবুবুর রহমান মাসুমের বিপরীতে মোস্তফা করিম এবং সাধারন সম্পাদক পদে জনাব শরীফ উদ্দিন সবুজের বিপরীতে জনাব বিল্লাল হোসেন রবিনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার নির্দেশনা রয়েছে।
আমরা জানতে পেরেছি গতকাল কমিশনের কাছে সভাপতি প্রার্থী মোস্তফা করিম ও সাধারন সম্পাদক বিল্লাল হোসেন রবিন এক আবেদনে নির্বাচন তিনমাস পিছিয়ে দেয়ার অনুরোধ করেছেন। এ ব্যাপারে আমরা মনে করি বর্তমান নির্বাচন কমিশনের নির্বাচন পেছানোর কিংবা পুনঃতফসিলের কোন এখতিয়ার নাই। যেহেতু সুপ্রিম কোর্টের ফুল বেঞ্চে ডিসমিসের আদেশের ফলে প্রেসক্লাবের নির্বাচনে আর কোনো বাধা নাই সেহেতু আদালতের আদেশ জ্ঞাত হওয়ার সাথে সাথে অনতিবিলম্বে নির্বাচন সম্পন্ন করতে হবে- এটাই আইনের বিধান। ফলে মহামান্য হাইকোর্ট এবং সুপ্রিম কোর্টের আপীলেট ডিভিশনের পূর্নাঙ্গ বেঞ্চের নির্দেশনা অনুযায়ী আপনাদের ঘোষিত নির্বাচনের তারিখ ও সময় অনুযায়ী আগামী ১১ নভেম্বর ২০১৬ খ্রীষ্টাব্দ শুক্রবার নির্বাচন অনুষ্ঠিত করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য বিনীতভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি।
এ আবেদনে সাক্ষর করেন, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি রুমন রেজা, একুশে টেলিভিশন এর জেলা প্রতিনিধি বিমল রায়, এটিএন এর জেলা প্রতিনিধি আব্দুস সালাম, ডেইলী ষ্টারের জেলা প্রতিনিধি ফয়সাল পরাগ, নিউ এইজ এর জেলা প্রতিনিধি রফিকুল ইসলাম জীবন, চ্যানেল টুয়েন্টিফোর এর জেলা প্রতিনিধি আহসান সাদিক শাওন, মাছরাঙা টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি আনিসুর রহমান জুয়েল, ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি মজিবুল হক পলাশ প্রমুখ। এ ব্যাপারে আগামী মঙ্গলবার সিদ্ধান্ত হবে বলে নির্বচন কমিশনের সদস্য ডঃ শাহনেওয়াজ চৌধুরী জানিয়েছেন।
পরিস্থিতি সম্পর্কে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দকেও অবহিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ইউনিয়নের (এনইউজে) একজন শীর্ষ নেতা। #