নির্বাচন স্থগিতে প্রেরিত আইনী নোটিশের কোন বিচারিক ভিত্তি নেই-রিটার্নিং কর্মকর্তা

876

নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম: নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনের তফসিল ২৪ ঘণ্টার মধ্যে প্রত্যাহার, বাতিল বা স্থগিত চেয়ে আব্দুল মতিন প্রধান যে লীগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছে এ নোটিশের কোন বিচারিক ভিত্তি নেই বলে জানিয়েছেন, রিটার্নিং কর্মকর্তা নুরুজ্জামান তালুকদার।
বুধবার সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভার সাবেক প্রশাসক আব্দুল মতিন প্রধানের পক্ষে নোটিশটি পাঠিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ।
এরপর ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারীতে আব্দুল মতিন প্রধান নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন থেকে সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভাকে আলাদা করতে হাইকোর্টে রিট করেন। এর পর রিটের শুনানী নিয়ে বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি জাফর আহমেদের বেঞ্চ রুল দেন, যা বর্তমানে বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও কৃষ্ণা দেবনাথের বেঞ্চে বিবেচনাধীন রয়েছে।
সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভাকে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন থেকে আলাদা করার মামলা বিচারাধীন থাকায় এ নোটিশ আবেদন করেন আব্দুল মতিন প্রধান।
এ অবস্থায় আইনি নোটিশ পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে নির্বাচনের তফসিল প্রত্যাহার, বাতিল বা স্থগিত করতে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে স্থানীয় সরকার সচিবকে এ নির্বাচন বন্ধে পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। অন্যথায় আগামী রবিবার আদালতে পুনরায় রীট দায়ের করা হবে বলে জানান এড. মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ।
এব্যাপারে সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভার সাবেক পৌর প্রশাসক আলহাজ্ব আব্দুল মতিন প্রধান, এই রীটটি ২০১৩ সালে দায়ের করা হয়েছিল। যা বর্তমানে শুনানীর জন্য ৪ নাম্বার কার্যতালিকায় আছে। আগামী সপ্তাহে চূড়ান্ত রায় হবে বলে আমি আশাবাদী। আর রায়ে যদি নির্বাচন বলবৎ থাকে তাহলে আমিও নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হিসেবে অংশ গ্রহণ করবো।
গত ১৪ নভেম্বর প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ আগামী ২২ ডিসেম্বর ভোটের দিন রেখে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন।
এ নির্বাচনের জন্য মনোনয়নপত্র জমা নেয়া হবে ২৪ নভেম্বর পর্যন্ত। ২৬ ও ২৭ নভেম্বর বাছাই আর ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রার্থীতা প্রত্যাহার করা যাবে।
এ ব্যাপারে রিটার্নিং কর্মকর্তা নুরুজ্জামান তালুকদার জানিয়েছেন এখনো কোন নোটিশ আসেনি, নির্বাচন স্থগিতে প্রেরিত আইনী নোটিশের কোন বিচারিক ভিত্তি নেই। নির্বাচনী কার্যক্রম চলমান আছে। ###