দেলপাড়ায় চাঁদা না দেয়ায় গার্মেন্ট মালিককে গুলির অভিযোগ

343

নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম: নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার পাগলার দেলপাড়া এলাকায় দাবীকৃত চাদা না পেয়ে একটি রপ্তানীমুখী পোষাক কারখানায় সন্ত্রাসীরা প্রায় আধঘন্টা তান্ডব চালিয়েছে। এসময় গার্মেন্ট মালিককে মারপিট ও মাথায় গুলি করে তারা। তবে সৌভাগ্যক্রমে গুলিটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে ডান কান ঘেষে চলে যায়। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় এক্সজোটিভ নীট এ্যাপারেল গার্মেন্টে এঘটনা ঘটে। তবে পুলিশ বলছে চাঁদা নয় গার্মেন্ট এর ঝুটের দাবীতে সন্ত্রাসীরা এ হামলা চালায়। প্রতিষ্ঠানের বাইরে গুলি বা ককটেলের একটি শব্দ শোনা গেলেও প্রতিষ্ঠানের ভেতরে এ ধরনের কোন শব্দ শোনা যায়নি।
ঘটনার পরে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার দাবীতে এলাকাবাসী বিক্ষোভ মিছিল করে সড়ক প্রদক্ষিন করে। এলাকাবাসীর অভিযোগ স্থানীয় থানা পুলিশের নিরবতায় সন্ত্রাসী জাহাঙ্গীর ও তার লোকজন বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। এলাকার লোকজন তাদের অত্যাচারে শান্তিতে বসবাস করতে পারছে না।
গার্মেন্টের ম্যানেজার মিজানুর রহমান মিণ্টু জানান, ইউপি নির্বাচনের পূর্বে ফতুল্লার কুতুবপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের সাধারণ সদস্য প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন তার ছোট ভাই জামানকে আমাদের গার্মেন্টে পাঠায়। জামান এসে গার্মেন্টের মালিক এমরান হোসেনকে জানান তার ভাই নির্বাচন করবে। তার প্রচারনার জন্য এক লাখ টাকা ও ২শ গেঞ্জি দিতে হবে। গার্মেন্ট মালিক এমরান টাকা ও গেঞ্জি দিতে অস্বীকৃতি জানায়। এসময় জামান দেখে নেয়ার হুমকি দিয়ে চলে যায়।
এর জের ধরে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় জামানের নেতৃত্বে ২০ থেকে ২৫ জন সন্ত্রাসী গার্মেন্টে অতর্কিত হামলা চালায়। তারা প্রথমে দারোয়ান শহীদুল ও ইব্রাহীমকে মারধর করে গার্মেন্টের ভিতরে প্রবেশ করে। এরপর গার্মেন্টের শিপমেন্টের জন্য প্যাক করা মালামাল ছড়িয়ে ছিটিয়ে বিভিন্ন স্থানে ফেলে দেয় এবং বেশ কিছু গেঞ্জি নিয়ে যায়। এসময় গার্মেন্টের মালিক এমরান হোসেন অফিস থেকে বের হয়ে প্রতিবাদ জানালে সন্ত্রাসীরা তাকে ধরে বেদম প্রহার করে। গার্মেন্টের বাইরে টেনে হিচরে নিয়ে যায়। এরপর দুই রাইন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে আতংক সৃষ্টি করে সন্ত্রাসীরা।
মিজানুর রহমান মিণ্টু আরও জানান, এমরানকে ছেড়ে দিয়ে চলে যাওয়ার সময় কিছুটা দূর থেকে তার মাথা লক্ষ্য করে সন্ত্রাসী নজরুল ইসলাম নজু একটি গুলি করে। ভাগ্যক্রমে গুলিটি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে ডান কান ঘেষে চলে যায়। এতে কানে সাধারন জখম হয়েছে।
খবর পেয়ে র‌্যাব ও পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি।
ফতুল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামাল হোসেন জানান, গার্মেন্ট এর ঝুট নিয়ে এখানে একটি ঝামেলা রয়েছে। ঝুটের দাবীতে সন্ত্রাসীরা ঐ গার্মেন্টে হামলা চালায়। তারা বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে গার্মেন্ট এর মালিককে আহত করে। তবে গার্মেন্ট এর ভেতরে গুলির কোন ঘটনা ঘটেনি। সন্ত্রাসীরা গার্মেন্ট এর বাইরে গিয়ে এক রাউন্ড গুলি বা ককটেলের বিস্ফোরন ঘটায়। এ ধরনের একটি শব্দ এলাকাবাসি শুনেছে বলে জানিয়েছে।#