ট্রাকষ্ট্যান্ড, বাসষ্ট্যান্ড খাচ্ছেন খান, নারায়ণগঞ্জে একক নিয়ন্ত্রন হতে দেবোনা-আইভী

1132

নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন এর মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, নারায়ণগঞ্জে একক নিয়ন্ত্রন হতে দেবোনা। সমস্ত সেক্টর খাচ্ছেন। ট্রাক ষ্ট্যান্ড খাচ্ছেন, বাসষ্ট্যান্ড খাচ্ছেন, বালু খাচ্ছেন, ভালোভাবে খান। কিন্তু আমার উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ করতে আসবেন না। যে-ই করতে আসবেন। সে-ই বিপদে পড়বেন বলে দিলাম। আমি যেখানেই কাজ করতে যাই সেখানেই একটি পক্ষ বাধার সৃষ্টির করে। তারা আমার উন্নয়ন কর্মকান্ড থামিয়ে দিতে চায়। কিন্তু গত বারো বছর যখন থামিনি তখন আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত থামবো না। আমি আল্লাহকে হাজির নাজির করে কাজ করি।
বৃহস্পতিবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন কার্যালয় প্রাঙ্গনে ‘জনগনের মুখোমুখি’ অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। অনুষ্ঠানে প্রশ্ন করে নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির কমিটির সভাপতি এডভোকেট এ বি সিদ্দিক, নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারন সম্পাদক আবু সাউদ মাসুদ, সমমনার সহ-সভাপতি  সেলিম ভূইয়া, নারী নেত্রী রাশিদ জামাল প্রমুখ।
বক্তব্যে মেয়র আরো বলেন, বাবুরাইলে বেগম ফজিলাতুননেছা মুজিব পার্ক ও লেক প্রকল্পের ব্যাপারে আমি রেলমন্ত্রীর সাথে কথা বলেছি। আমি তাকে বলেছি, আপনি আসুন। দেখুন। আমি যদি জনগনের বিরুদ্ধে কোন কাজ করে থাকি তাহলে আমাকে বলুন। আমি এ কাজ থেকে সড়ে যাবো। তিনি আমার এ প্রকল্পের কখনোই কোন বিরোধীতা করেন নাই। পুরো নারায়ণগঞ্জে রেলওয়ের কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি বেহাত হয়ে আছে। কোন ঘটনায়-ই রেলওয়ে কোন মামলা করেনি। কিন্তু সিটি কর্পোরেশন যখন ফজিলাতুননেছা পার্ক ও লেকের উদ্যোগ নিয়েছে তখনই এতে রেলওয়ে মামলা করলো। চানমারিতে আমরা বাসষ্ট্যান্ড করার জন্য জায়গা চাইলাম। আমাদের দেয়া হলোনা। অথচ জায়গাটি দখল করে শহরের উপর থেকে ট্যাক্সিষ্ট্যান্ড সেখানে সড়ানো হচ্ছে। শহরের উপরে রাজউকের জায়গায় ট্যাক্সিষ্ট্যান্ড ছিলো। সেখান থেকে জোর করে তাদের উচ্ছেদ করে জায়গা বিক্রি করে দেয়া হলো। সাইনবোর্ড এলাকায় সিটি কর্পোরেশন মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্য করার উদ্যোগ নিলো। সে জায়গাটি দখল করে ফেলা হলো। আমি জনগনের জন্য কাজ করতে গেলেই একটি পক্ষ বাধা দিতে উঠে পড়ে লাগছে। প্রশাসনও তাদের সহযোগিতা করছে। কিন্তু কেউ সরকারি জায়গা দখল করে ব্যাক্তিগতভাবে লাভবান হলে প্রশাসন তাদের সহযোগি হয়ে কাজ করছে।
তিনি বলেন, কাপুরুষের মতো পেছন থেকে ষড়যন্ত্র না করে আমাকে সরাসরি মোকাবেলা করুন। আমি আপনাদের সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করার জন্য প্রস্তুত। অশ্লিল পোষ্টার লাগিয়ে ব্যানার লাগিয়ে আমাকে থামিয়ে রাখা যাবেনা। কলমের মর্যাদা রক্ষা করুন। জনগন যেদিন ক্ষেপে যাবে সেদিন রোধ করতে পারবেন না। বারবার আঘাত করলে আমি কিন্তু শান্ত থাকবো না। কিছু হলেই ঠিকাদার সুফিয়ান। এই যে তাবিজ, এই তকমা এই তকমা দিয়ে আমার ইজ্জত হনন করা যাবেনা। আমি নারায়ণগঞ্জ নাজমা রহমান নই, আমি আকরাম সাহেব নই আমি নারায়ণগঞ্জ ছেড়ে যাবো না। আমার দাদা একজন কৃষক ছিলো। আমার বাবা চুনকা একজন ম্যাট্রিক পাশ ছিলো। আমি তার মেয়ে ডাঃ সেলিনা হায়াৎ আইভী। আমার ভিটা মাটি চৌদ্দ পুরুষের শহর এই নারায়ণগঞ্জ। আমি পালিয়ে যাবোনা অন্য কোথাও। আপনারা কোনো কোনো সাংবাদিক লিখবেন বয় ফ্রেন্ড নিয়ে আমি ঘুরে বেড়াবো, আপনার লিখবেন প্রিয় আবু সুফিয়ান আর আমি লজ্জায় মাথা নত করে পালিয়ে যাবো তা হবে না। ভদ্রতার আড়ালে বড় পরিবারের আড়ালে যে পুরুষরা অপকর্ম করে বেড়ায় সাহস থাকলে তাদের বিরুদ্ধে লিখুন। যারা নারীকে ইজ্জত দিতে পারেনা, মাকে ইজ্জত দিতে পারেনা তারা কুলাঙ্গার। এই শহরে নির্বাচিত হয়ে এসেছি। প্রতিটা নির্যাতিত মানুষের পাশে থাকবো। ত্বকী,চঞ্চল, আশিক হত্যাকারিদের পাশে থাকবো। রফিউর রাব্বির অত্যাচারের বিরুদ্ধে থাকবো। সমস্ত ঠিকাদারের পাশে থাকবো। ঠিকাদারদের বলতে চাই, এ পর্যন্ত তিন-চারটা মামলা করা হয়েছে। আরো হবে। কিন্তু আমাকে থামিয়ে রাখা যাবেনা। ডঃ কামাল, মান্না, প্রথম আলো, ডেইলী ষ্টার এসব বলে আমাকে ভয় দেখানো যাবেনা। আলী আহম্মদ চুনকার বিরুদ্ধেও ষড়যন্ত্র হয়েছে। আমার বিরুদ্ধেও হচ্ছে। সব ষড়যন্ত্রের উত্তর কাজের মাধ্যমে দেয়া হবে। নারায়ণগঞ্জে একক নিয়ন্ত্রন হতে দেবোনা। সমস্ত সেক্টর খাচ্ছেন। ট্রাক ষ্ট্যান্ড খাচ্ছেন, বাসষ্ট্যান্ড খাচ্ছেন, বালু খাচ্ছেন, ভালোভাবে খান। কিন্তু আমার উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ করতে আসবেন না। যে-ই করতে আসবেন। সে-ই বিপদে পড়বেন বলে দিলাম। আল্লাহ বলেছেন ধৈর্য ধরতে। এজন্য ধৈর্য্য ধরে থাকি। #