জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রকল্পের সুফল পেতে ডিএনডিবাসীর সহযোগিতা লাগবে-পানি সম্পদ মন্ত্রী

22

নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম: পানি সম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেছেন, ডিএনডিবাসীর জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ৫শ’৬০ কোটি টাকা ব্যয়ে এই প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। ৬ গুণ বেশী ক্ষমতা সম্পন্ন পানি নিস্কাশনে পাম্প হাউজ স্থাপন ও খালগুলো দখলমুক্ত ও সংস্কার করা হবে। তবে দ্রুত এই সমস্যা সমাধানে বিদেশ থেকে আরো একটি পাম্প এনে লাগানোর ঘোষণা দেন তিনি। প্রকল্পের সুফল পেতে জনগণকে আমাদেরকে সহযোগিতা করতে হবে। তিনি বলেন, আমরা নিন্ম মধ্যম আয়ের দেশে পরিনিত হয়েছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিদের্শনায় ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্য আয়ের দেশ পরিণিত হবে। আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে এই প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। এই প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য যত টাকা প্রয়োজন হবে তা দেয়া হবে।
রোববার বিকেলে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের নাভানা ভুঁইয়া সিটি মাঠে ডিএনডি প্রকল্পের কাজ শুরু করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জানিয়ে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী মো. নজরুল ইসলাম বিরু বীর প্রতীক, স্থানীয় সাংসদ একেএম শামীম ওসমান, আবু হোসেন বাবলা, সাংসদ ড. সানজিদা খাতুন, হোসনে আরা বাবলী, লিয়াকত হোসেন খোকা, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মুহাম্মদ শহীদ বাদল প্রমুখ।
সাংসদ শামীম ওসমান তার বক্তব্যে বলেন, আওয়ামী লীগ নামে উন্নয়ন। শেষ হাসিনা মানে উন্নয়ন। বিএনপি বা অন্য দলে যারা ভালো মানুষ আছেন তাদেরকে আহবান জানাবো আসেন আমরা সবাই মিলে সুন্দর বাংলাদেশ গড়ি। তিনি আগামী বর্ষার আগে জলাবদ্ধতা নিরসনে উদ্যোগ নেয়ার আহবান জানান।
মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, ডিএনডি বাঁধের ভেতরে বর্ষাকালে কোমড় পর্যন্ত পানি উঠে যায়, মানুষের দুর্ভোগের শেষ থাকে না। আমরা চেষ্টা করছি ২০১৯ সালের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ করতে। জনগণকে এই প্রকল্পের সুফল পেতে সর্বোচ্চ সহায়তা করতে হবে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের যেসব জায়গা বেদখল হয়ে গেছে সেই জায়াগা ফেরত দিতে হবে। সকলকে সহযোগিতা করতে হবে। জমি অধিগ্রহণে সহায়তা করতে হবে। না হলে আমরা যতই বড় বড় পাম্প স্টেশন বসাই না কেন কোন কাজে লাগবে না। ##