চলন্ত ট্রাকে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনা: আদালতে স্বীকারোক্তি দুই আসামীর

61

নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম: গাজীপুর থেকে ছেড়ে আসা চলন্ত ট্রাকে কিশোরী গণধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতারকৃত দুই আসামী ট্রাকচালক মেহেদী হাসান এবং হেলপার সোহান ওরফে তুহিন রোববার নারায়ণগঞ্জের আদালতে নিজেদের দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে। জবানবন্দি শেষে আদালতের নির্দেশে তাদেরকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।
নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক সোহেল রানা জানান, চারদিনের রিমান্ড শেষে আজ রবিবার বিকেলে অভিযুক্ত দুই আসামীর মধ্যে মেহেদী হাসানকে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আখতার উজ্জামান ভূঁইয়ার আদালতে এবং সোহান ওরফে তুহিনকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মো: আফতাবুজ্জামান এর আদালতে পৃথকভাবে হাজির করা হয়। আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে তারা ওই কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনার বর্ণনা দিয়ে নিজেদের দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি প্রদান করে। আদালত জবানবন্দি রেকর্ড করে তাদেরকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। গত বৃহস্পতিবার দুপুরে পুলিশ এই দুই আসামীকে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মো: আফতাবুজ্জামান এর আদালতে হাজির করে সাতদিনের রিমান্ডের আবেদন করলে আদালত চারদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রোববার তাদের রিমান্ডের শেষ দিন ছিল।
গত মঙ্গলবার বিকেলে গাজিপুর এলাকায় এক কিশোরী তার মায়ের উপর অভিমান করে ঘর থেকে রেরিয়ে রাস্তায় এলে ট্রাকচালক মেহেদী হাসান এবং হেলপার সোহান ওরফে তুহিন তাকে জোর করে ট্রাকে তুলে নিয়ে রাতভর ধর্ষণ করে। পরদিন সকালে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থানার গোদনাইলের এসিআই পানিরকল এলাকায় পরিত্যক্ত ট্রাক থেকে ওই ধর্ষিতা কিশোরীকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে পুলিশে সোপর্দ করে। ওইদিন রাতেই পুলিশ ট্রাকচালক মেহেদী হাছানকে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জপুল এলাকা থেকে এবং বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর সাভার থেকে হেলপার সোহান ওরফে তুহিনকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় ধর্ষিতা কিশোরী বাদী হয়ে এই দুইজনকে আসামী করে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করে।#