কিডনী বিকল তিন সন্তানের জনক মোজ্জাম্মেল হোসেনের বেঁচে থাকার স্বপ্নে মরিচিকা

465

নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম: দুই কিডনী বিকল হয়ে চিকিৎসা খরচ বহন করতে গিয়ে নি:স্ব হয়ে পথে বসেছে তিন সন্তানের জনক মোজাম্মেল হোসেন। নিজের চিকিৎসা বহন খরচ বন্ধ হওয়াসহ ছেলে মেয়ের লেখাপড়া করে মানুষ হওয়ার স্বপ্ন ভেঙ্গে যাওয়ার পথে। মোজ্জামেল হোসেন এক সময় সিঙ্গাপুরের প্রবাসী হিসেবে দেশে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের একজন অংশিদার হওয়ার পরও নিজের জীবনের সব অর্জনের টাকার চিকিৎসা খরচে ব্যায় করে পথের ফকির হয়েছে। এখন বেচে থাকার স্বপ্ন নিয়ে দারিদ্রতায় দিন কাচাচ্ছেন মোজাম্মেল হোসেন। নিরুপায় হয়ে তিন সন্তানের মধ্যে বার বছরের মেঝো ছেলে সানীর পড়ালেখা বন্ধ করে সামান্য বেতনে কাজে লাগিয়ে দিয়েছে। আর দুই মেয়ে মধ্যে বড় মেয়ে দশম শ্রেনীর ছাত্রী সাদিয়া ও ছোট মেয়ে জান্নাত ফেরদৌসের পড়ালেখা বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়ে পরেছে। এ অবস্থায় মোজ্জাম্মেল হোসেন তার তিন সন্তান স্ত্রী পরিরবার নিয়ে দু:স্বপ্নে দুর্দশায় দিন কাটাচ্ছেন।
মোজাম্মেল হোসেন ফতুল্লার দক্ষিন ধর্মগঞ্জ এলাকার আরাফাত নগরের আব্দুল মোতালেবের ছেলে। সে তিন বছর আগে দুই কিডনি বিকল হয়ে সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফিরে আসে। পরে জাতীয় কিডনী ডিজিজেস ও ইউরোলজী ইনস্টিটিউট এর কিডনী রোগ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডাঃ কাজী শাহ্নূর আলমের তত্বাবধানে চিকিৎসা শুরু করেন। এর পর থেকে প্রতি সপ্তায় দুইবার তার কিডনী ডায়োলাইসিস করা হয়। প্রতি মাসে আটবার ডায়োরাইসিস করাতে ও তার মাসিক ঔষধপত্র মিলে প্রায় ২৫ হাজার থেকের ৩০হাজার টাকা খরচ হয়। এ অবস্থায় নিজের চিকিৎসা খরচ বহন করতে পারছে না। আর তার সন্তানদের লেখা পড়া বন্ধ হওয়ার উপক্রম। এ অবস্থায় চোখে মুখে পথ না দেখে স্বস্ত্রী নিয়ে মোজাম্মেল হোসেন নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নে এসে সরকার ও হৃদয়বান ব্যাক্তিদের প্রতি আকুল আবেদন করেছেন তার চিকিৎসা খরচের জন্য যেন সাহায্য সহযোগিতায় এগিয়ে এসে একটি পরিবারকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করে। আর তার সন্তানরা যেন লেখাপড়া করে মানুষের মত মানুষ হতে পারে। তাকে সহযোগিতা করতে সরাসরি মোজ্জাম্মেল হোসেনের মোবাইল নম্বার:-০১৮২২৮৮১৫৯২ এবং পঞ্চবটি ব্রাঞ্চ আইএফআইসি ব্যাংকে তার একাউন্ট নাম্বার:- ১১৭৩০৯৩৮৯৮০৩১ সহযোগিতা করার জন্য মোজ্জাম্মেল হোসেন সকলের কাছে আবেদন করেছেন। ###