রূপগঞ্জে মসজিদের ভেতর শিশু হত্যা ॥ মোয়াজ্জেম আটক

788

রূপগঞ্জ প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ৮ বছরের এক শিশুকে মসজিদের ভেতরে গলাটিপে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে গতকাল শনিবার দুপুরে পুলিশ স্থানীয় মসজিদের মোয়াজ্জেম জহিরুল ইসলামকে আটক করেছে। আটক জহিরুল ইসলাম চাঁদপুর জেলার কচুয়া থানার রাতপুর গ্রামের মোবারক হোসেনের ছেলে। ঘটনাটি এলাকায় চরম উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে।
এলাকাবাসী জানান, দেড় বছর ধরে উপজেলার সুতালরা গ্রামের হাফেজ সিকদারের বাড়িতে সুমাইয়া আক্তার তার মা ফরিদা বেগম ও বাবা ওয়াজিদ মিয়ার সাথে বসবাস করে আসছে। গত বৃহ¯প্রতিবার সকালে মজিবুর রহমানের মেয়ে তামান্নার সাথে সুমাইয়া আক্তার স্থানীয় মোল্লাপাড়া জামে মসজিদে আরবী পড়তে যায়। পড়া শেষে তামান্নাকে ছুটি দিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দিলেও সুমাইয়াকে মসজিদ ঝাড়– দেয়ার কথা বলে আটকে রাখে মোয়াজ্জেম জহিরুল ইসলাম। এ সময় উপর্যুপরি ধর্ষণের পর শিশু সুমাইয়াকে গলাটিপে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে বলেও এলাকাবাসী ধারণা করছেন। তাকে হত্যার পর লাশ মসজিদের পানির ট্যাঙ্কিতে ফেলে দেয়া হয়। পরে শুক্রবার রাত ১১টার দিকে পানির ট্যাঙ্কি থেকে তুলে মোস্তাফিজ মোল্লার একটি পুকুরে লাশ ফেলে দেয়। গতকাল শনিবার সকালে লাশ উদ্ধার করা হলে এলাকায় চরম উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।
এদিকে সুমাইয়া আক্তার নিখোঁজ হয়েছে বলে শুক্রবার মসজিদের মাইকে মোয়াজ্জেম নিজেই একাধিকবার ঘোষণা দেন। শনিবার দুপুরে পালিয়ে যাওয়ার সময় এলাকাবাসীর সন্দেহ হলে তাকে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করে। পরে পুলিশের কাছে সুমাইয়াকে হত্যার কথা শিকার করেন জহিরুল ইসলাম। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে।
রূপগঞ্জ থানার ওসি ইসমাইল হোসেন জানান, প্রাথমিকভাবে সুমাইয়াকে হত্যার কথা শিকার করেছে আটক জহিরুল ইসলাম। তবে শিশুকে হত্যার আগে ধর্ষণ করা হয়েছে কিনা তা ময়না তদন্ত রিপোর্ট এলে বলা যাবে। এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। ###