আরো কম সময়ে শুরু হবে উইন্ডোজ ১০!

113

উইন্ডোজ ১০-এর জন্য বড় আকারের হালনাগাদ উন্মুক্ত করেছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মাইক্রোসফট গত বৃহস্পতিবার থেকে। এই হালনাগাদের পর থেকে উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমে চালিত ডিভাইস আরো দ্রুতগতিতে বুট হবে, সহজে সেট করা যাবে রিমাইন্ডার, ছবি দেখা যাবে আরো স্পষ্টভাবে- সর্বোপরি আরো স্বাচ্ছন্দ্যে ব্যবহার করা যাবে যেকোনো ডিভাইসে। সিএনএনের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। উইন্ডোজ ১০-এর জন্য এবার হালনাগাদে অপারেটিং সিস্টেমের বাহ্যিক চেহারায় তেমন কিছুই পরিবর্তিত হচ্ছে না। বরং এই পরিবর্তন প্রায় সবটুকুই কারিগরি দিকে। অনেকেই এই হালনাগাদকে উইন্ডোজ ১০-এর জন্য প্রথম ‘সার্ভিস প্যাক’ বলে অভিহিত করছেন। অতীতের বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেমের জন্য মাইক্রোসফট বিভিন্ন বাগ দূর করে ও নতুন ফিচার যুক্ত করে ‘সার্ভিস প্যাক’ বাজারে এনেছে। তবে এখন এই হালনাগাদকৃত উইন্ডোজ ১০-কে সার্ভিস প্যাক না বলাটাই শ্রেয়। কারণ প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে উইন্ডোজের জন্য হালনাগাদ এখন একটি অনবরত চলমান প্রক্রিয়া। ব্যবহারকারীদের মতামতের ভিত্তিতে ক্রমাগত পরিবর্তন হতে থাকবে এই অপারেটিং সিস্টেম।
মাইক্রোসফটের উইন্ডোজ ও ডিভাইস গ্রুপের এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট ইউসুফ মেহেদী এই হালনাগাদ সম্পর্কে বলতে গিয়ে জানান, ‘আমরা শুধু এটিকে নভেম্বর আপডেট নামেই ডাকছি। আমরা আভাস দিতে চাচ্ছি যে আমরা সার্ভিস প্যাক ধারণা থেকে সরে আসতে যাচ্ছি- কিন্তু বাস্তবিক অর্থে প্রতিটি হালনাগাদই এক একটা সার্ভিস প্যাক!’ প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, হালনাগাদকৃত উইন্ডোজ ১০, উইন্ডোজ ৭-এর চেয়ে ৩০ শতাংশ বেশি দ্রুতগতিটে বুট করতে পারবে। অন্যদিকে পরিবর্তিত হয়েছে তাদের নতুন ওয়েব ব্রাউজার এজ। এখন গুগল ক্রোমের মতো এক অ্যাকাউন্টের তথ্য বিভিন্ন উইন্ডোজ ডিভাইস থেকে ব্যবহার ও পরিবর্তন করা যাবে। ড্রাইভারের হালনাগাদের মাধ্যমে এখন থেকে আরো স্পষ্ট ছবি দেখার সুযোগ থাকছে। আর টাচস্ক্রিন ডিভাইসে কর্টনা অ্যাপে হাতে লেখার মাধ্যমে রিমাইন্ডার যুক্ত করার সুবিধা চালু হয়েছে।

করপোরেট ব্যবহারের জন্য অনেক বেশি সুযোগ-সুবিধা এসেছে ‘নভেম্বর আপডেট’-এ। এখন থেকে কোনো প্রতিষ্ঠানের আইটি ম্যানেজার খুব সহজেই সেই প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন উইন্ডোজ ১০ পিসি কীভাবে হালনাগাদ হবে তা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন। বিশ্বের প্রায় ১১ কোটি পিসি এই মুহূর্তে উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমে চালিত হচ্ছে। মাইক্রোসফট এখন এই অপারেটিং সিস্টেম দিয়ে করপোরেট দুনিয়া মাত করতে চাচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, ২০১৭ সালের মধ্যে বিশ্বের প্রায় ৫০ শতাংশ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান উইন্ডোজ ১০-এর আওতায় আসবে। একই সঙ্গে মাইক্রোসফটের আশা ২০১৮ সালের মধ্যে সারা দুনিয়ার ১০০ কোটি কম্পিউটার ডিভাইসে ব্যবহৃত হবে উইন্ডোজ ১০।