কে পাচ্ছে নৌকা ? সিদ্ধান্ত শুক্রবার, ঘোষানার সম্ভাবনা রোববার

1149

নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম: কে পাবে আওয়ামীলীগের প্রতিক নৌকা ? এ নিয়ে আলোচনা এখন নারায়ণগঞ্জের চায়ের আড্ডায়। কেউ বলছেন কেন্দ্রে ভালো যোগাযোগ শামীম ওসমানের। তাই তার সমর্থিত প্রার্থী আনোয়ার হোসেনের জন্য সে এনে দেবে নৌকা। অন্যরা বলছেন, আইভী বিগত নির্বাচনে বিপুল ভোটে শামীম ওসমানকে পরাজিত করে জয়ী হয়েছেন। সম্প্রতি নানাভাবে প্রমাণিত হয়েছে তার প্রতি কেন্দ্রের সু-দৃষ্টি রয়েছে। তাই আইভী-ই নৌকা পাচ্ছেন। এদিকে আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় একটি সূত্র জানিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে ফেরার পর আগামী শুক্রবার নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনে দলীয় মনোনয়ন বিষয়ে একটি সভা অনুষ্ঠিত হবে। তবে আওয়ামীলীগের প্রার্থী কে তা আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে আগামী রোববার।
নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে দুইজনের নাম শোনা যাচ্ছে। এদের একজন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের বর্তমান মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াৎ আইভী। অন্যজন নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন। গত ২১ জুলাই মহানগর আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনকে এমপি শামীম ওসমান সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে ঘোষনা করেন। এরপর গত ২৯ অক্টোবর নারায়ণগঞ্জ ওসমানী ষ্টেডিয়ামের বাইরের মাঠে অনুষ্ঠিত সভায় শামীম ওসমান আনোয়ার হোসেনের প্রার্থীতা সম্পর্কে বলেন, ‘নেত্রী নৌকা দিলে আনোয়ার ভাই আওয়ামীলীগ থেকে নির্বাচন করবেন।’ গত মঙ্গলবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সার্কিট হাউসে মহানগর আওয়ামীলীগের এক বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। মহানগর আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমানসহ থানা ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ। সভায় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনকে মেয়র প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করার প্রস্তাব গৃহীত হয়। একই সাথে বন্দর থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবদুর রশিদ এবং সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগ সভাপতি মজিবুর রহমানকে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের মনোনয়ন বোর্ডের কাছে প্রস্তাব পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এ সিদ্ধান্তের কথা জানান কমিটির সহ-সভাপতি চন্দন শীল। সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি জানান, কেন্দ্র থেকে আগামী ২০ নভেম্বরের মধ্যে মেয়র প্রার্থীর প্রস্তাব পাঠানোর জন্য নারায়ণগঞ্জ মহানগর কমিটিকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে মহানগর কমিটির আজকের সভায় গৃহীত প্রস্তাব কেন্দ্রে পাঠানো হবে।
পরে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার বলেন, আশা করি আমি-ই দলের মনোনয়ন পেয়ে নৌকা প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করবো।
আপনার মনোনিত প্রার্থীকে নৌকা এনে দিতে পারবেন কিনা ? এ প্রশ্নের জবাবে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি এ কে এম শামীম ওসমান বলেন, আনোয়ার ভাই শুধু আমার মনোনিত না, আজকের বর্ধিত সভায় ১৫০ জন আওয়ামীলীগ নেতা উপস্থিত ছিলেন। এরা সবাই অকুন্ঠভাবে আনোয়ার হোসেনকে সমর্থন দিয়েছে। তিনি বলেন, এ সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে দলের পক্ষে নির্বাচন বিষয়ে কথা বলবেন তিনজন। এরা হচ্ছেন মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি চন্দন শীল, যুগ্ম-সম্পাদক শাহ নিজাম উদ্দিন ও সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম আরাফাত। ফলে আমি এ ব্যাপারে কোনো কথা বলবো না। তাদের সাথে কথা বলেন।
অন্যদিকে আইভী সমর্থকরা বলছেন আইভী-ই নৌকা প্রতীক তথা দলীয় মনোনয়ন পাবেন। তারা বলছেন, শামীম ওসমান নিজেই গত নির্বাচনে এক লাখ ভোটের বিশাল ব্যবধানে পরাজিত হয়েছেন। ফলে সিটি নির্বাচন বিষয়ে তার প্রভাব কেন্দ্রে ফলদায়ক হবেনা বলে তারা মনে করছেন। জেলা যুবলীগের সভাপতি আব্দুল কাদির বলেন, নেত্রী যাকেই মনোনয়ন দেবেন আমরা তার সাথে আছি। তবে আমরা বেশ জোরালোভাবে আশাবাদি যে মেয়র আইভী-ই নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পাবেন। কারন তিনি নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনে ব্যাপক উন্নয়ন কাজ করেছেন। যা কেন্দ্রে প্রশংসিত হয়েছে। আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক তার উন্নয়ন কর্মকান্ডের প্রশংসা করে তাকে দুইবার চিঠি দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নকাজের ক্ষেত্রে তাকে অনুসরনের জন্য সাড়াদেশের চেয়ারম্যানদের বলেছেন। তিনি বলেন, এছাড়া কিছু লক্ষনে বোঝা যাচ্ছে এখন কেন্দ্রের সুদৃষ্টি মেয়রের দিকে রয়েছে। তাকে উপ-মন্ত্রী করা হয়েছে। জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতির পদটি তাকে কেন্দ্র থেকে নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে। যেখানে সাড়াদেশের অন্যান্য কমিটিগুলির ক্ষেত্রে শুধু সভাপতি, সাধারন সম্পাদক ঘোষনা করা হয়েছে। এসব কিছু মিলিয়ে বোঝা যাচ্ছে তিনি-ই নৌকা পেতে যাচ্ছেন।
এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, আমি দলীয় মনোনয়ন চাইবো। দল দিলে নির্বাচন করবো। দলের সিদ্ধান্তের বাইরে যাবোনা।
অন্যদিকে আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির একটি সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বর্তমানে দেশের বাইরে রয়েছে। বুধবার তার দেশে আসার কথা। তিনি দেশে ফিরলে শুক্রবার নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনে দলীয় মনোনয়ন বিষয়ে একটি সভা অনুষ্ঠিত হবে। তবে দলীয় মনোনয়নের বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে জানানোর সম্ভাবনা বেশি ২০ নভেম্বর। #