বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে হত্যার হুমকী

250

বন্দর প্রতিনিধি: বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ আফতাব উদ্দিন চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডায়েট ঠিকাদার ফেরদৌস ওয়াহিদ সুমনের অব্যাহত হুমকীর মুখে গভীরভাবে উদ্বিগ্ন বলে জানিয়েছেন তিনি। আজ সোমবার বন্দর উপজেলা আইন-শৃংখলা কমিটির সভায় ডাঃ আফতাবউদ্দিন জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে শংকা প্রকাশ করার পর সদস্যরা ক্ষোভে ফেটে পড়েন। এসময় বন্দর থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি এম এ রশীদ বলেন, স্বাস্থ্য কর্মকর্তার যদি নিরাপত্তা না থাকে তাহলে বন্দরবাসীকে সেবা দিবেন কি করে। এটা সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বলে আমি মনে করি। বন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ এর প্রতি অনুরোধ আজই ডাঃ আফতাবউদ্দিনের কাছ থেকে লিখিত অভিযোগ নিয়ে ঐ সন্ত্রাসী ঠিকাদারের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যাবস্থা গ্রহন করুন। সভায় অন্যান্য সদস্যরাও এব্যাপারে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহনের দাবি জানান। ডাঃ আফতাবউদ্দিন আরও জানান, বিগত এক যুগ ধরে ফেরদৌস ওয়াহিদ সুমন নামে এক ঠিকাদার বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের খাবারসহ সকল ঠিকাদারী এককভাবে পেয়ে আসছিলো। দেড় বছর আগে ডাঃ আফতাবউদ্দিন যোগদানের পর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সার্বিক পরিবেশ উন্নত করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করেন। চলতি বছর ঠিকাদার সুমনের হাত থেকে ডায়েট ছাড়া অন্যসব ঠিকাদারী ছুটে গেলে এজন্য ডাঃ আফতাবউদ্দিনকে দায়ী করতে থাকে। সম্প্রতি ঠিকাদার সুমন হাসপাতালে ঢুকে ডাঃ আফতাবউদ্দিনসহ অন্যান্যদের হত্যার হুমকী দেয়। এরপর থেকে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাসহ কমপ্লেক্সের ডাক্তার ও কর্মরতরা। এদিকে হাসপাতাল পরিচালনার জন্য স্থানীয় এমপি সেলিম ওসমান একটি কমিটি করার নির্দেশনা দিলেও অদ্যবধি ঐ কমিটি অনুমোদন না হওয়ায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি অরক্ষিত হয়ে পড়েছে বলে স্থানীয়রা মনে করেন। ###