বন্দরে শিক্ষক লাঞ্ছিত হাইকোটের রুল জারী ॥ দেশ ব্যাপী নিন্দার ঝড়

470

বন্দর প্রতিনিধি: বন্দরে ইসলাম ধর্মকে নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে স্কুলের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে প্রকাশ্যে কান ধরে উঠবস করানোর ঘটনায় হাই কোর্টে রিট দায়ের হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে হাইকোর্টের স্বঃপ্রনোদিত বেঞ্চ বিচারপতি মঈননুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি ইকবার কবিরের আদালতে রিট করেন এড. এমকে রহমান ও এড. মহসীন রশিদ। হাইকোট রিট গ্রহণ পূর্বক শিক্ষক লাঞ্ছিতের ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ সেলিম ওসমানসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে কেন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবেনা এই মর্মে সরকারের প্রতি রুল জারী করেন একই সাথে স্বরাষ্ট্র সচিব, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও বন্দর থানার ওসিকে আগামী দু’সপ্তাহের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। এ দিকে এ ঘটনায় সোস্যাল মিডিয়াসহ সারা দেশে নিন্দার ঝড় বইছে। এ ঘটনার জন্য গত মঙ্গলবার গভীর রাত পর্যন্ত সরেজমিনে তদন্ত করেছেন, মাধ্যমিক উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের ঢাকা অঞ্চলের পরিচালক মোঃ ইউসুফ। এসময় সঙ্গে ছিলেন, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুস সামাদ। এছাড়াও জেলা প্রশাসকের নির্দেশে বন্দর উপজেলা প্রশাসন ৫ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। এ তদন্ত কমিটি আগামী ৫ কার্যদিবসে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা হতে গভীর রাত পর্যন্ত মাধ্যমিক উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের পরিচালক বিদ্যালয়ে গিয়ে স্কুলের শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলেছেন।
বন্দর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মৌসুমী হাবীব জানান, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আ.ক.ম নুরুল আমিনকে প্রধান করে এবং উপজেলা প্রকৌশলী মোহাম্মদ পাটুয়ারী, উপজেলা প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ ফারুক সমন্বয়ে ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করলেও মঙ্গলবার জাতীয় পূজা উদযাপন পরিষদের আরও দুই নেতাকে অর্ন্তভুক্ত করা হয়েছে তদন্ত কমিটিতে। তারা হলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সভাপতি শঙ্কর সাহা ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক শিপন সরকার লিখন। ৫ সদস্যের ওই তদন্ত দলকে আগামী ৫ দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।
এদিকে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের জাতীয় পার্টির এমপি একেএম সেলিম ওসমান প্রধান শিক্ষককে কান ধরে উঠবস করানোর ঘটনার ব্যাখ্যা দিতে ২৩টি ব্যবসায়ী সংঘঠন গতকাল বুধবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ ক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন। অন্য দিকে পিয়ার ছাত্তার উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন স্থানীয় লোকজন বলে আসছে, ওই ঘটনার দিন এমপি সেলিম ওসমান শিক্ষককে উত্তেজিত জনতার হাত থেকে বাঁচাতে যে পদক্ষেপ নিয়েছেন শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তের প্রাণ রক্ষা করা হয়েছে। ####