না’গঞ্জের বন্দরে ফার্মাসিস্টের ভুলে শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ

267

নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম: নারায়ণগঞ্জের বন্দরে এক ফার্মাসিস্টের ভুলে ৮ মাসের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার রাতে বন্দরের একরামপুর ইস্পাহানী বাজারে জামান মেডিকেল কর্ণারে ওই ঘটনা ঘটে। নিহত শিশুর নাম আরবি। জামান মেডিকেলের ফার্মাসিস্ট মোঃ আজাহার (৩০) শনিবার রাতে শিশুটির শরীরে একটি ইনজেকশন পুশ করার ১০ মিনিটের মধ্যেই শিশুটি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। নিহত আরবি ইস্পাহানী এলাকার হানিফ মিয়ার ছেলে। ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ফার্মেসীটি ভাংচুর করে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে ফার্মাসিস্ট আজহারকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায়। রাতেই শিশুটির বাবা বাদি হয়ে বন্দর থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
বন্দর থানার ওসি (তদন্ত) হারুন অর রশিদ নিহতের পরিবারের বরাত দিয়ে বলেন, ঠান্ডা জনিত রোগে আক্রান্ত হওয়ায় শনিবার বিকেলে শিশুটিকে শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. পলাশ কুমারকে দেখানো হয়। তিনি ব্যবস্থাপত্রে শিশুটিকে নেবুলাইজার দেওয়ার জন্য লিখে দেন। তাতে কাজ না হলে একটি ইনজেকশনের নাম লিখে দেন। রাতে হানিফ মিয়া শিশুটিকে নিয়ে জামান মেডিকেল কর্ণারে নিয়ে ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী প্রথমে নেবুলাইজার দিতে বলেন। আজহার নেবুলাইজার দেওয়ার পরেও শিশুটির শ্বাস কষ্ট না কমায় তাকে ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী ইনজেকশন দিতে শিশুটির বাবা হানিফ মিয়াকে পরামর্শ দেন। হানিফ মিয়া তাতে সম্মত হলে আজহার শিশুটিকে ইনজেকশন পুশ করে। ইনজেকশন পুশের ১০ মিনিটের মধ্যেই শিশুটি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ফার্মেসী ভাংচুর করে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে আজহারকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।
ওসি হারুন আরো বলেন, প্রাথমিক ভাবে পুলিশের ধারণা আজহার চিকিৎসকের নির্দেশনা অনুযায়ী ইনজেকশনটি পুশ করতে পারেনি। অথবা মাত্রা বেশি দিয়ে ফেলেছে। আবার মেয়াদোর্ত্তীণ ইনজেকশন বা নি¤œ মানের ইনজেকশন পুশ করার কারণেও এমনটি হতে পারে। আজহারকে জিজ্ঞাসাবাদ করে প্রকৃত ঘটনা জানার চেষ্টা করা হচ্ছে। #