আড়াইহাজারে মাদকের টাকার জন্য গৃহবধূকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যার করলো স্বামী

246

আড়াইহাজার প্রতিনিধি: আড়াইহাজারে স্বামীর দাবীকৃত মাদকের টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় সালমা নামে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করে লাশ ঘরের বাইরে রেখে পালিয়ে যায় স্বামী সোহেল মিয়া।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানাগেছে,মাদকাসক্ত স্বামীকে মাদকের টাকা জোগার দিতে না পারায় গত (১ আগষ্ট) সোমবার দিবাগত রাত ১টার দিকে উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের কান্দাপাড়া এলাকায় এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে।

থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহত গৃহবধূ সালমার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ মর্গে প্রেরন করেছে। নিহতের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ও গলায় আঘাতের দাগ রয়েছে।

জানাগেছে,১০বছর আগে উপজেলার বগাদী গ্রামের দরিদ্র আমানউল্লাহর মেয়ে সালমার সাথে কান্দাপাড়া এলাকার তারা মিয়ার ছেলে সোহেলের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই মাদকাসক্ত স্বামী সোহেল বিভিন্ন কারনে সালমার উপর নির্যাতন চালিয়ে আসছিল।

নিহত গৃহবধূ সালমার পিতা আমানউল্লাহ জানান, বিয়ের পর থেকেই সালমার স্বামী নেশাগ্রস্থ হয়ে মেয়ের উপর নির্যাতন চালাত। সে সারাদিন নেশাগ্রস্থ হয়ে থাকত এবং কোন কাজকর্ম করত না। সোহেল প্রায়ই সালমার কাছে নেশার টাকা দাবী করতে। টাকা দিতে না পারলেই চালানো হত অমানুষিক নির্যাতন। এ নিয়ে স্থানীয় ভাবে বেশ কয়েকবার শালিস বসিয়ে স্বামী সোহেলের বিচার করে।

ঘটনার দিন রাত ২টার দিকে স্বামী সোহেল সালমার পিতাকে মোবাইল ফোনে জানায়, আপনার মেয়ে ঘরের বাইরে পরে আছে,এসে দেখে যান। নিত্য দিনের মতো ঘটনা মনে করে আমানউল্লাহ মেয়ের বাড়িতে যাননি। মঙ্গলবার সকালে প্রতিবেশীরা খবর দেয় যে,সালমার লাশ স্বামী সোহেলের ঘরের বাইরে পরে রয়েছে।
নিহত গৃহবধূ সালমার হালিমা(৮) ও সোহানা(৩) নামে ২টি কন্যা সন্তান রয়েছে। বড় মেয়ে হালিমা কান্দাপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেনীর ছাত্রী।

আড়াইহাজার থানার ওসি শাখাওয়াত হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান,স্বামী সোহেল সহ তার পরিবারের সকলে পালিয়ে গেছে। তবে স্বামী সোহেলকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। ##